Home বই নিয়ে

বই নিয়ে

সুখসমগ্র, বোবা পৃথিবীর গান: হাওরের জলজীবনে ফেরদৌস জান্নাতুল

কবি শফিক সেলিম বই নিয়ে লিখেছেন - "সুখসমগ্র" নিচে ছোট করে ওয়েস্টর্ণ কায়দায় লেখা "লিখে গেছে হাওরের জল"। একটু আলাদা বইটার নাম "সুখসমগ্র লিখে গেছে হাওরের জল"। কবি ফেরদৌস জান্নাতুল। ফ্ল্যাপে লেখা দেখলাম এটা কবির সপ্তম বই।

জলঘুমে অথরা পাঠে রহস্যের গন্ধ

পড়ছিলাম কবি সৌহার্য্য ওসমানের 'জলঘুমে অথরা' কাব্যগ্রন্থটি। কাব্যগ্রন্থটি পড়ার পর মনে হলো প্রথম প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ হিসেবে বেশ ভালোই হয়েছে। কবি তার কবিতার ভেতর গ্রামীন ও শহুরে জীবনের অলিগলি পথ হেঁটে, কখনো মনের ভেতরের রাস্তায়ও উঁকি দিয়েছেন খুব দক্ষতার সাথে।

পাতার রঙ জলপাই

কবি সৌহার্য্য ওসমানের দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ "পাতার রং জলপাই"। প্রিন্ট পোয়েট্রি প্রকাশনী থেকে একুশে গ্রন্থ মেলা ২০২১ এ প্রকাশ করেছে। ৩ ফর্মার এই কাব্যগ্রন্থটির প্রচ্ছদ করেছেন রঞ্জন কুমার দে। মেলায় বইটির পরিবেশক জনান্তিক।

জলঘুমে অথরা : চৈতন্য দ্রোহে এক নাগরিক চিত্রকলা

অথরা’ কবির চৈতন্য; কোন নারী নয়, ‘জলঘুমে অথরা’ প্রেমের কাব্যগ্রন্থও নয়। তন্দ্রাচ্ছন্ন কবির আত্মচৈতন্য প্রকাশ পেয়েছে যাকে তিনি জাগিয়ে তুলতে চান নাগরিক জীবনের দ্রোহ আর ভালোবাসায়। তিনি কাব্যগ্রন্থটি জুড়েই অথরার বন্ধনা করে গেছেন বিভিন্ন সুরে বিভিন্ন ব্যাঞ্জনায়। ভিন্ন ভিন্ন চিত্রকল্পে অথরাকে এঁকেছেন শিল্পীর নিখাঁদ তুলির আঁচড়ে।

জলঘুমে অথরা : প্রাসঙ্গিক ভাবনা

কবিতায় মূলত মননের নান্দনিকতায় ভিন্ন ভিন্ন চিত্রকল্পে পাঠকের মন তার নিজের মন করবার চেষ্টাই হয়ত থাকে, সাথে আঙ্গিকের মেটাফোর চিন্তাকে আরও আরও নৈর্ব্যক্তিক করে তোলে। সৌহার্য্য ওসমানের প্রথম কাব্যগ্রন্থের কবিতাগুলোতে  তিনি বৈশ্বিক হবার চাইতেও, বেশি স্থানিক হয়ে উঠেছিলেন।

জলঘুমে অথরা : এক সংলগ্ন জীবনের আখ্যান

কিছু কিছু কবিতা এরকম হয় যা একবার পড়লে বার বার পড়তে ইচ্ছে করে, মনে অজস্র ভাবনা দোলা দেয়, যাকে লিপিবদ্ধ না করলে তার ঘোড় কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয় না। ঠিক এমনটিই হয়েছে সৌহার্য্য ওসমান’র ‘জলঘুমে অথরা’ পড়বার পর থেকে

জলঘুমে অথরা : প্রেম ও দ্রোহের অন্তর্জাল

কাল্পনিক অথরাকে ঘিরে ২০১৯ এ প্রকাশিত ৪২ টি কবিতার সমন্বয়ে "জলঘুমে অথরা" সৌহার্য্য ওসমানের প্রথম প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ। তিনি দেশের নবীন কবিদের মধ্যে অন্যতম প্রতিভাবান কবি। আন্তর্জাতিক ভাবেও পরিচিতি পেয়েছে তার এই কাব্যগ্রন্থটি। ওপার বাংলা ও আসামেও সমাদৃত "জলঘুমে অথরা"।

জলঘুমে অথরা : নিভৃতির মরমী ভূবন

বাংলা কবিতার খুব বৈভবশালী আর স্ফুর্ত একটি ধ্যান বা ধারার ভূখণ্ডটি যেন প্রকৃতি, এবং তাকে আশ্রয় বা তুল্য হিসেবে ধরে চিন্তা ও নন্দনে সঞ্চারিত হওয়া। এই প্রবণতাটিকে যদি বাংলা কাব্যের মূল হিসেবেও বিবেচনা করা হয়, খুব একটা ভুল কী আর হবে!

আত্মমগ্নতায় – জলঘুমে অথরা

একজন  নিভৃতচারী কবির লেখা কবিতাও  আন্তর্জাতিক মানের হয়ে উঠে। যাপনের  চারপাশটা  তখন হয়ে উঠে বৈশ্বিক। সৌহার্য্য ওসমানের 'জলঘুমে অথরা' কাব্য গ্রন্থে বিষাদ ও দুঃখবোধ আছে । সেই দিক দিয়ে  ওসমানের কবিতায় বেদনার শিল্পরূপ বিষাদের রেশ ধরে কিছু কিছু জায়গায় হৃদয় খুঁড়ে খায়

ক্রমাগত ভাঙন থেকে : পরিদৃশ্যমান নন্দনতত্ত্ব

একজন সুরঞ্জিত বাড়ই কবিতার আড়ষ্টতা নিয়ে ভাবেন না। বরং তিনি স্বতঃস্ফূর্ততার সঙ্গে দীক্ষিত মননের সমন্বয় ঘটিয়ে কবিতাকে সাবলীল করে তোলেন। 'ক্রমাগত ভাঙন থেকে' কবির নিছক উচ্চারণ মাত্র নয়! যেখান থেকে কিছু কবিতার সম্মোহন যেন হাত বাড়ায় অনন্য শিল্পরূপে।