নগরীর ধোঁয়া- সাজ্জাদ সাঈফ এর গুচ্ছকবিতায় নাগরীক জীবন যে ছায়াবৃত্তের রেখায় চলেছে সেখানে কবি সাজ্জাদ সাঈফ জলবায়ু পরিবর্তন এর জন্য বিশ্ব যেখানে টালমাটাল,সেখানে কবি উচ্চারণ করেছেন মানবতার কথা।
পৌরাণিক ইতিহাস ও জল লবনের প্রার্থনা :লখিন্দরের গান-মাসুদ পারভেজ বই নিয়ে রিভিউ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সমসাময়িক সাহিত্যে কাজী নাসির মামুন এর অন্যতম প্রথম কাব্যগ্রন্থ লখিন্দরের গান চিরকালীন পৌরাণিক ও মিথের আলোচনার বিষয়।
সম্পর্কের গান-সকাল রয় ভাবের মধ্য দিয়ে মানব মানবীর মনোজগৎ কেন্দ্রিক যে ভাব তৈরি হয় ঐশ্বরিক ভাবে,তারই এক সফল প্রকাশ ঘটেছে, সকাল রয় এর রচনায়।
হেমন্তের এলিজি - গার্গী সেনগুপ্ত, সমুদ্র ক্লান্ত বিকেল ঘরে ফিরি, জলের ঝাপটা দিই ঘাম নুন ধুয়ে  ঠান্ডা, শান্তি- শান্তি তোমার কথাই কেন মনে পড়ে?
অমৃতা প্রীতম ৩১ আগস্ট, ১৯১৯ জন্ম গ্রহণ করেন এবং ৩১ অক্টোবর, ২০০৫ মৃত্যু বরণ করেন। তিনি একজন ভারতীয় লেখিকা ছিলেন। তাকে উল্লেখযোগ্য পাঞ্জাবি মহিলা কবি, ঔপন্যাসিক ও প্রবন্ধকার হিসেবে গণ্য করা হয়ে থাকে। বিংশ শতাব্দীর এই কবি ভারতের বাইরেও খুব জনপ্রিয় ছিলেন। ছয় দশকের দীর্ঘ সময় ধরে তিনি কবিতা, কল্পকাহিনী, জীবনী, প্রবন্ধ, লোক সঙ্গীত প্রভৃতি বিভিন্ন বিষয়ে প্রায় ২০০ গ্রন্থ রচনা করেন, যা বিভিন্ন ভারতীয় ও বিদেশী ভাষায় অনূদিত হয়। অমৃতা প্রীতম এর “শহর ও অন্যান্য” কবিতা,  কিংবদন্তি’র জন্যে  অনুবাদ করেছেন কবি মুনমুন সরকার শইকীয়া ।
শরীরভর্তি মেঘ- রুবেল সরকার এর কবিতাগুলো জীবনবাদী উপাখ্যান। যার প্রতিটি কবিতা নির্মিতির দিক দিয়ে বাস্তবিক হয়ে যায় অনায়াসে। আর সেখানেই আমরা কবিকে খুঁজে ফিরে আসি।
৫০শব্দের নির্বাচিত ১০টি অনুগল্প- রাজু রোজারিও বাংলা সাহিত্যে পরিক্ষন একটি গল্পের ধারা নিজেকে প্রমান করবার পথে আছেন
বিস্ময়ের অপমৃত্যু- ওয়াদুদ আকন্দ তার গল্পের যে ভাষা, ভঙ্গি এবং চরিত্রের নাটকীয়তা উপস্থাপন করেছেন। সেখানেই গল্পের এবং গল্পকারের অপার বিষ্ময় প্রকাশিত। ওয়াদুদ আকন্দ বিষ্ময়ের অপমৃত্যু গল্পে যে ইঙ্গিত প্রদর্শন করেছেন সেটা বাংলা গল্পে একটি আপেক্ষিক বিষয়।
তোমার হস্তরেখা আমাকে জ্যাোতিষী বানায়-রিগ্যান এসকান্দার এর কবিতায় যে প্রগতিশীলতা, মানবিকতা ও মনস্তত্ত্ব দেখা যায়।সেটাই আমাদের কাঙ্ক্ষিত কাব্য।সেখানেই রিগ্যান সফল।
আমাদের মেজ ভাই-অংশুমান কর তার এই নাতিদীর্ঘ এলেজি রচনায় যে মুনশিয়ানা দেখিয়েছেন, সেটা আমাদের বাংলা কবিতায় দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী একটি কবিতা।এ কবিতায় কবি আপন সহোদর মৃত্যু কে কত অবলিলায় গ্রহণ করেছেন, কবি টের পাননি। কিন্তু কবিতা নির্মিতিতে কিংবদন্তি হয়ে উঠেছে আমাদের মেজ ভাই।